অটিজম আক্রান্ত শিশুর ইকোলেলিয়া বা কথার পুনরাবৃত্তি – আচরণ গত সমস্যা, নাকি অন্য কিছু?

একজন স্পিচ অ্যান্ড ল্যাগুয়েজ থেরাপিস্ট হিসেবে কাজ করার সময় অটিজম আক্রান্ত শিশুর অভিভাবকগনের কাছ থেকে বাচ্চা সম্পর্কে সবচেয়ে বেশি যে অভিযোগগুলো শুনতে পাওয়া যায়, তার মাঝে অন্যতম হলো – “আমার বাচ্চা আমি যা বলি তাই বলে- গাড়ী বললে গাড়ি বলে, বল বললে বল বলে, কিন্তু গাড়ি দেখিয়ে “এটা কি?“ প্রশ্ন করলে সে সেই প্রশ্নই আবার আমাকে রিপিট করে, কিন্তু সেই প্রশ্নের উত্তর দেয় না।“

আবার অনেকে বলেন তাদের বাচ্চা হয়ত অনেক দিন আগে টিভিতে একটা বিজ্ঞাপন দেখেছে, তখন কিছু বলেনি, কিন্তু অনেক দিন পর সেই বিজ্ঞাপনের সুর বা কথাগুলো বার বার রিপিট বা পুনরাবৃত্তি করে। তাদের মনে প্রশ্ন জাগে- এটা কি বাচ্চার কোন আচরণগত সমস্যা? স্বাভাবিকভাবেই তারা ধমক দিয়ে বা জোর করে বাচ্চাকে রিপিট করা বন্ধ করতে চান, যেটা বাচ্চার মানসিক স্বাস্থ্যের জন্যে মোটেই ভাল নয়।

এই পুনরাবৃত্তি বা স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপির ভাষায় যেটাকে “ইকোলেলিয়া“ বলা হয় তা সম্পর্কে কিছুটা ধারণা দেয়া, এবং এ ধরণের সমস্যার সমাধান করার জন্যে অভিভাবকগণ কি করতে পারেন, তা জানানোই এ লেখাটির উদ্দেশ্য।

ইকোলেলিয়া (/ˌɛkəʊˈleɪlɪə/):

ইকোলেলিয়া, শব্দটি দুটি গ্রীক শব্দের সমন্বয়ে গঠিত। “ইকো” শব্দের অর্থ  “প্রতিধ্বনি বা পুনরাবৃত্তি” এবং “লেলিয়া“ শব্দের অর্থ  “অর্থহীন কথা”।

সাধারণত অন্যের কথাকে প্রতিধ্বনি বা পুনরাবৃত্তি করার প্রবণতাকে ইকোলেলিয়া (Echolalia)বলা হয়। এই ধরনের বাচ্চারা যেকোন শব্দ, বাক্য, কথপোকথন, গান পুনরাবৃত্তি করতে পারে এমনকি অন্যেরা যে টোন বা সুরে বলে, হুবহু সেভাবেই বলে থাকে। ইকোলেলিয়া মূলত ভাষা শেখার একটি ধাপ। বেশির ভাগ শিশুরা ৩০ মাসের ভেতরে এই ইকোলেলিয়া থেকে বেরিয়ে আসে। কিন্তু ৩০ মাস পরেও যদি কোন বাচ্চার ইকোলেলিয়া থেকে যায় তাহলে তা ট্যুরেট সিন্ড্রোম ও অটিজমের বৈশিষ্ট্য, বিভিন্ন নিউরোডেভেলপমেন্টাল কন্ডিশন, ভিজুয়্যাল ইমপেয়ারমেন্ট বা ডেভেলপমেন্টাল ডিজঅ্যাবিলিটি এর একটি সাইন বা উপসর্গ হতে পারে (HealthLine, 2020)

ইকোলেলিয়ার বিভক্তিকরণঃ

ইকোলেলিয়াকে চার ভাগে ভাগ করা যেতে পারেঃ

ইমিডিয়েট ইকোলেলিয়া (Immediate Echolalia)- একটি বাচ্চা কোন শব্দ বা বাক্য শুনেই তা সাথে সাথে পুনরাবৃত্তি করলে তাকে ইমিডিয়েট ইকোলেলিয়া বলা হয়।

উদাহরণসরূপঃএকজন মা যদি বাচ্চাকে প্রশ্ন করে “ তুমি চিপস খাবে? ” বাচ্চা প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে সাথে সাথে সেই বাক্যটির অর্থ না বুঝে বাক্যটি রিপিট বা পুনরাবৃত্তি করবে।

ডিলেইড ইকোলেলিয়া (Delayed Echolalia)- একটি শিশু যখন কোন শব্দ, বাক্য, গান ও ছড়া শুনেসাথে সাথে রিপিট বা পুনরাবৃত্তি না করে তা কিছু দিন, সপ্তাহ, ঘণ্টা, মাস বা বছর পরে পুনরাবৃত্তি করে তা হলো ডিলেইড ইকোলেলিয়া (PrimeHealthChannel, 2020).

নন ফাংশনাল ইকোলেলিয়া (Non- Functional Echolalia)নন ফাংশনাল ইকোলেলিয়া (Non- Functional Echolalia)
যখন বাচ্চা যোগাযোগ করার উদ্দেশ্য নিয়ে প্রতিধ্বনি (Echo) করে। কোন উদ্দেশ্য পূরণে দেয়া-নেয়া, তথ্য জানানো, প্রশ্নের উত্তর দেওয়া, কিছু চাওয়ার জন্য ইত্যাদি।যখন বাচ্চা উদ্দেশ্য ছাড়াই প্রতিধ্বনি (Echo)করে তাহলে তা নন ফাংশনাল ইকোলেলিয়া।  

অটিজম ছাড়াও ইকোলেলিয়া যেসব রোগের কারণে হতে পারেঃ

  • Asperger syndrome
  • Tourette syndrome
  • Pervasive developmental disorders
  • Schizophrenia
  • Alzheimer’s disease
  • Aphasia
  • Rubinstein-taybi syndrome (Prizant, 1981)

অটিজমে ইকোলেলিয়া কেন হয়, এবং এর সমাধান কি?

একটি অটিজম আক্রান্ত শিশু বিভিন্ন উদ্দেশ্যে শব্দের পুনরাবৃত্তি করতে পারে, এবং সময়ের সাথে সাথে এর উদ্দেশ্য পরিবর্তিত ও হতে পারে। এমনকি অটিজম আক্রান্ত একই বাচ্চা একাধিক উদ্দেশ্যে ইকোলেলিয়ার ব্যবহার করতে পারে।

কিছু কিছু অটিজম আক্রান্ত বাচ্চা বিভিন্ন অর্থবোধক শব্দ ব্যবহার করে ( অনেক সময় অনেক জটিল এবং পুর্ণবয়স্ক ব্যক্তির মতই) – কিন্তু তাদের কথা বলার ধরণ বা টোন বিভিন্ন পরিস্থিতিতেও একই রকম থাকে, ঠিক যেমন সে টিভিতে দেখেছে বা টিচারের কাছ থেকে শুনেছে। আবার অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় অটিজম আক্রান্ত অনেক বাচ্চা ( এবং প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তিও) শব্দের অর্থ বুঝতে না পেরে মানুষ যা বলে হুবহু তাই বলে। এই ক্ষেত্রে এই ইকোলেলিয়া বা পুনরাবৃত্তিকে তারা সেনসরি আউটলেট হিসেবেও ব্যবহার করতে পারে- অর্থাৎ তারা যখন উদ্বিগ্ন বা নার্ভাস, তখন এই তীব্র সেনসরি চ্যালেঞ্জগুলির সাথে লড়াই করে তখন নিজেকে শান্ত করার এক উপায় হিসেবে ইকোলেলিয়া ব্যবহার করে। এসময় এই ইকোলেলিয়াকে Self-stimulation বা “Stimming” হিসেবে ধরা যায়।

আবার অনেক ক্ষেত্রে অটিজম আক্রান্ত ব্যক্তিরা কোন আইডিয়া বা ঘটনা প্রকাশ করার জন্যে “Prefabricated phrases” বা পুর্ব নির্ধারিত বাক্যাংশ ব্যবহার করে। যেমন – গ্লাস টেবিলের উপর আছে, এ বিষয়টি প্রকাশ করার জন্যে তারা তাদের আগে থেকে শেখা “গ্লাসে পানি খাই” বাক্যাংশটি ব্যবহার করতে পারে। এটা তারা ব্যবহার করে যখন তাদের নিজে থেকে নতুন করে শব্দ সাজিয়ে বাক্য গঠন করতে সমস্যা হয়।

তবে, অটিজম আক্রান্ত শিশুর জন্য ইকোলেলিয়া একটি ভালো সাইন হিসেবে বিবেচনা করা হয়, যা তাদের ভবিষ্যতে ল্যাঙ্গুয়েজ ডেভেলপমেন্ট বা ভাষাগত দক্ষতা অর্জনের জন্য সহায়তা করে (Suzie, 2008)। যদি বাচ্চাকে ল্যাংগুয়েজ বা ভাষা বুঝতে শেখে, তাহলে ইকোলেলিয়া নিজে থেকেই বন্ধ হয়ে যাবে, এবং বাচ্চা প্রশ্নের উত্তর দেয়া শুরু করবে। অর্থাৎ ইকোলেলিয়া বন্ধ করার জন্যে কোন ক্রমেই বাচ্চাকে জোর করা, বা ধমক দেয়া যাবেনা।

অভিভাবকদের প্রতি পরামর্শঃ

  • বাচ্চাকে কোন বিষয় সম্পর্কে বোঝানোর জন্য সহজ ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করবেন।
  • বাচ্চাকে কোন এক্টিভিটি (Activity)করানোর সময় তাকে সেই বিষয়ে সহজ ভাষায় প্রশ্ন করুন এবং তাৎক্ষনিক উত্তরটি তাকে (বাচ্চাকে) দিন। [মুখে বলে ও পয়েন্ট (Point) করে দেখানোর মাধ্যমে] ।
  • মডেলিং করার মাধ্যমে বাচ্চাকে সাহায্য করা যেতে পারে। যেমন- বাচ্চাকে সামনে রেখে বাচ্চার মা কোন একটি বস্তু (উদাহরণ- গাড়ী) দেখিয়ে জিজ্ঞাসা করবেন “এটা কি?” এর পরেই বাচ্চার বাবা বা পরিবারের অন্য কেউ সেই বস্তুর দিকে আঙ্গুল দিয়ে বস্তুর নাম বলে দেবেন ( উদাহরণ- “এটা গাড়ী”)। এভাবে করে বাচ্চা প্রশ্নের উত্তর করা শিখবে।
  • যদি আপনার বাচ্চা আপনার কথা বলা রিপিট (Repeat) করে তাহলে প্রশ্নটি আবার করবেন এবং কাজটি [প্রশ্ন সাপেক্ষে উত্তর সম্পর্কিত কাজ] বন্ধ করে দিবেন। বিরতি দিন এবং আবার প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করুন। আপনার শিশু প্রশ্নটি প্রতিধ্বনি করে নাকি উত্তর দেয় তা দেখুন।
  • অবশ্যই ইকোলেলিয়া সমস্যা সমাধানে একজন দক্ষ গ্র্যাজুয়েট স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপিস্টের স্বরণাপন্ন হবেন। মনে রাখবেন, বাচ্চা যদি কথার পুনরাবৃত্তি করা শুরু করে, তখনই স্পিচ এন্ড ল্যাংগুয়েজ থেরাপি শুরু করার আদর্শ সময়। (LookLikeLanguage, 2020)

লেখক:

মোঃ হাসিবুল হাসান

ক্লিনিক্যাল স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপিস্ট

ফেইথ বাংলাদেশ

১/১৫ এ, ইকবাল রোড

মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

হটলাইনঃ +৮৮০১৭৮৩২৪৮৪২৩

ওয়েবসাইটঃ  www.faithbangladesh.org/services

References

Healthline, (2020). Echolalia. Retrieved from, https://www.healthline.com/health/echolalia

LooksLikeLanguage, (2020). Practical Tips for How to Deal With Echolalia. Retrieved from, https://lookslikelanguage.com/2017/04/how-to-deal-with-echolalia-practical-tips.html           

PrimeHealthChannel, (2020). Echolalia. Retrieved from, https://www.primehealthchannel.com/echolalia.html

Prizant, B. M., & Duchan, J. F. (1981). The functions of immediate echolalia in autistic children. Journal of speech and hearing disorders46(3), 241-249.

Suzie, H (2008). Understanding Echolalia. Super Duper Publications, 169.

3 Replies to “অটিজম আক্রান্ত শিশুর ইকোলেলিয়া বা কথার পুনরাবৃত্তি – আচরণ গত সমস্যা, নাকি অন্য কিছু?

  1. Thanks a lot. My son is 10 years old.He also repeated the words how can I help him for his development. He can say ami jabo, no, ma, baby,,baby etc

Leave a Reply to Shama Cancel reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Skip to content